ভালবেসে বিয়ে : স্বামীর মৃত্যুর দুই ঘন্টা পর মারা গেলেন স্ত্রীও

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

আলোকিত শীতলক্ষ্যা : ভালবাসার সম্পর্কে বিয়ে করার দুই মাসের মাথায় এক লাখ ৩৩ হাজার ভোল্ডের বৈদ্যুতিক তারের সাথে স্পৃষ্ঠ হয়ে দগ্ধ হয়ে নব-দম্পতি মারা গিয়েছে। দগ্ধ হওয়ার তিনদিনের মাথায় বৃহস্পতিবার ভোর চারটার দিকে মাহাবুল ইসলাম ও সকাল ৬টার দিকে রুনিয়া আক্তার মারা যায়।

স্বামী-স্ত্রীর এই মৃত্যুর সংবাদে দুই পরিবারের মাঝে নেমে আসে শোকের ছায়া।

বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারী) সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইফনিটিতে চিকিৎসাধীনরত অবস্থায় তারা মারা যায়।

নিহতরা হলো মাহাবুল ইসলাম (২৫) ময়মনসিংহের ফুলপুর থানার গোপপুর এলাকার আবুল কালামের ছেলে ও তার স্ত্রী রুনিয়া আক্তার খাদিজা (২০)। তারা নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা শাসনগাও এলাকার মিজানুর রহমানের বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসাবে দুইজন বসবাস করে। তারা দুইজনই বিসিক শিল্পনগরীর গার্মেন্টে চাকরী করতো।

জানা যায় এরআগে সোমবার (১৩ জানুয়ারী) দুপুরে ফতুল্লার শাসনগাও এলাকার ওহাব সরদারের বিল্ডিংয়ের ছাদে কাপড় শুকাতে যায় রুনিয়া আক্তার খাদিজা। সে ছাদে উঠার সাথে সাথে সেই বিল্ডিংয়ের উপর দিয়ে যাওয়া এক লাখ ৩৩ হাজার ভোল্ডের বৈদ্যুতিক তার চুম্বকের মত টেনে নেয় এবং রুনিয়া বিদ্যুত স্পৃষ্ঠ হয়ে শরীর জ্বলছে যায়। ঐসময় রুনিয়ার শরীরের জামায় আগুন ধরে যায় এবং সেই আগুন নিচে পড়ে দুইটি ঘর আগুনে পুড়ে যায়।

আর রুনিয়ার চিৎকারের শব্দ পেয়ে তার স্বামী মাহাবুল ইসলাম তাকে বাঁচাতে দ্রুত সেই ছাদে উঠে এবং তাকে কোলে করে নিচে নামার সময় সেই শক্তিশালী বিদ্যুতের তারে তাকেও টেনে নেয় এবং সেও দগ্ধ হয়ে শরীর জ্বলছে যায়।

স্বামী-স্ত্রী দুইজনই দগ্ধ হয়ে সেই ছাদে পড়ে থাকলে খবর পেয়ে ফতুল্লার বিসিক ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা উদ্ধার করে তাদের নিজস্ব এ্যাম্বুলেন্স দিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইফনিটিতে ভর্তি করে।

নিহত মাহাবুল ইসলামের মামা মোঃ আলিম উদ্দিন নব-দম্পতির মৃত্যুর এঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, তার ভাগিনা মাহাবুল ইসলাম বিসিকের একটি গার্মেন্টে চাকরী করতো। আর রুনিয়া আক্তারও একই এলাকার একটি গার্মেন্টে চাকরী করতো। সেই সুবাধে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। গত দুই মাসে আগে বাবা মায়ের অবাধ্য হয়ে তারা বিয়ে করে সুখের সংসার বাধে এবং ফতুল্লা শাসনগাও এলাকার মিজানুর রহমানের বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসাবে বসবাস করে।

তাদের বিয়েটি পরিবার মেনে নেয়নি। আনুমানিক ১৫ দিন হয় মাহাবুল ইসলামের পরিবার তাদের বিয়ে মেনে নেয় এবং তাদের সাথে যোগাযোগ শুরু করে।

কিন্তু বিয়ের দুই মাসের মাথায় বৈদ্যুতিক তারের সাথে স্পৃষ্ট হয়ে দগ্ধ হয় এবং তিনদিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারা মারা যায়।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন জানান, বিদ্যুত স্পৃষ্ঠ হয়ে স্বামী স্ত্রী দগ্ধ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। কিন্তু মারা গেছে কিনা পরিবারের পক্ষ হতে কেউ অবগত করেনি। তার পরও আমরা খোজ খবর নিয়ে বিস্তারিত জানাতে পারবো। সংবাদ (যুগের চিন্তা ২৪)

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

আলোকিত শীতলক্ষ্যা

পরিশ্রমকারীব্যক্তি কখনও ব্যর্থ হয়না এগিয়ে যাও সফল হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.