বাংলাদেশে নির্মিত হচ্ছে এশিয়ার সবচেয়ে ব্যয়বহুল স্টেডিয়াম

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

আলোকিত শীতলক্ষ্যা : বাংলাদেশে ক্রিকেটকে আরও জনপ্রিয় করে তৈরি হচ্ছে এশিয়ার সবচেয়ে ব্যয়বহুল স্টেডিয়াম। ছবিতে দেখুন কেমন আকৃতিতে নির্মিত হবে এই স্টেডিয়াম।

ঠিক যেন বিশালাকার একটা নৌকা। যেন হাজার হাজার যাত্রী নিয়ে এখনই রওনা দেবে। তার পেটের মধ্যে রয়েছে আস্ত একটা সবুজ ক্রিকেট মাঠ। নৌকায় চড়ে সেই মাঠে হবে দুই দেশের ব্যাট-যুদ্ধ। তবে এ নৌকা জলে ভাসবে না। শহরের মাঝে এক জায়গাতেই স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে থাকবে।

এমনই আকৃতিতে নির্মিত হবে বাংলাদেশে এশিয়ার সবচেয়ে ব্যয়বহুল ক্রিকেট স্টেডিয়াম। এর নাম শেখ হাসিনা ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়াম। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্রিকেটের বড় ভক্ত। তাকে সম্মান জানাতেই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড এই স্টেডিয়ামের নাম রেখেছে প্রধানমন্ত্রীর নামে।

সম্পূর্ণ নৌকার আকৃতিতেই গড়ে তোলা হচ্ছে স্টেডিয়ামটি। এমন সুন্দর এবং আধুনিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম এতদিন বাংলাদেশে ছিল না। সম্পূর্ণ নৌকার আকৃতিতেই গড়ে তোলা হচ্ছে স্টেডিয়ামটি। এমন সুন্দর এবং আধুনিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম এতদিন বাংলাদেশে ছিল না।

নৌকার আকৃতির হওয়ার একে বোট স্টেডিয়ামও বলা হয়। দেশের স্মার্ট সিটি পূর্বাঞ্চলে সেক্টর ১-এ ৩৮ একর জমির উপর গড়ে তোলা হচ্ছে এই স্টেডিয়াম। নৌকার আকৃতির হওয়ার একে বোট স্টেডিয়ামও বলা হয়। দেশের স্মার্ট সিটি পূর্বাঞ্চলে সেক্টর ১-এ ৩৮ একর জমির উপর গড়ে তোলা হচ্ছে এই স্টেডিয়াম।

২০১৮ সাল থেকে এর কাজ শুরু হয়েছে। সব কিছু ঠিক থাকলে ২০২২-এ কাজ সম্পূর্ণ হওয়ার কথা এই স্টেডিয়ামের। এতে খেলা দেখার জন্য তিন তলা গ্যালারি এবং একটা মিডিয়া সেন্টারও থাকবে। খেলোয়াড়দের অনুশীলনের জন্য থাকছে আলাদা ব্যবস্থা।

স্টেডিয়ামটি তৈরি করতে আনুমানিক খরচ হবে ১৪০ মিলিয়ন ডলার যা ভারতীয় মুদ্রায় এক হাজার কোটি টাকারও বেশি। এটাই আগামী দিনে এশিয়ার সবচেয়ে ব্যয়বহুল ক্রিকেট স্টেডিয়াম হতে চলেছে।

এই স্টেডিয়ামের ধারণ ক্ষমতা হবে ৫০ হাজারেরও বেশি। ধাপে ধাপে তা বাড়িয়ে এক লাখ পর্যন্ত করা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

এ ছাড়াও এই স্টেডিয়াম বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সদর দফতর হবে। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) ঢাকা ডায়নামাইটের ঘরের মাঠ হবে। এতদিন এই দলের ঘরের মাঠ ছিল শের-ই-বাংলা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম। (সংবাদ-জাগো নিউজ২৪)

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

আলোকিত শীতলক্ষ্যা

পরিশ্রমকারীব্যক্তি কখনও ব্যর্থ হয়না এগিয়ে যাও সফল হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.