স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর ছায়াদ্বীপে স্বপ্নের বিদ্যুৎ সংযোগের উদ্বোধন করলেন এমপি খোকা

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

স্টাফ রিপোর্টার আলোকিত শীতলক্ষ্যা : স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর অবশেষে নারায়ণগঞ্জের কক্সবাজার নামে খ্যাত সোনারগাঁ উপজেলার মেঘনা নদী পরিবেষ্টিত প্রত্যন্ত দ্বীপাঞ্চল নুনেরটেক (ছায়াদ্বীপ) বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় আসতে আরেক ধাপ এগোলো।

মঙ্গলবার (২৪ ডিসেম্বর) বিকেলে সোনারগাঁ উপজেলার নুনেরটেক এলাকার লালপুরী দরবার শরীফের সামনের মাঠে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বৈদ্যুতিক খুঁটি স্থাপনের মাধ্যমে এই এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর অবশেষে বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হতে যাচ্ছে সোনারগাঁ উপজেলার মেঘনা নদী পরিবেষ্টিত প্রত্যন্ত নুনেরটেক এলাকাটি।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এমপি খোকা বলেন, আমি এখানে প্রথম নির্বাচিত হয়ে আসার পর বিদ্যুৎ না থাকায় মনে কষ্ট পেয়েছিলাম এবং প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম নুনেরটেকে বিদ্যুৎ দিব। নুনেরটেক এলাকায় বিদ্যুৎ দিতে পেরেছি বলে নিজের কাছে ভালো লাগছে। আপনাদের জন্য ছয় বছর কষ্ট করে বিদ্যুতের কাজ করেছি, নুনেরটেকের মানুষের জন্য বিদ্যুৎ দিতে পেরে আজ নিজেকে ধন্য মনে করছি।

বিদ্যুৎ আসায় নুনেরটেক একদিন একটা মডেল শহর হবে। এই প্রত্যন্ত এলাকায় ১৫ হাজার ফিট নতুন পাকা রাস্তার কাজও দিয়েছি। নুনেরটেক উচ্চবিদ্যালয়ে নতুন ভবন করে দেয়া হবে। বালু কেটে নুনেরটেক এলাকাকে শেষ করতে দিব না আমি বেঁচে থাকতে। এক ফোটা বালু আর কাটতে দিব না, যারা বালু কাটবে তাদের বাড়ি ঘর থাকবে না। নুনেরটেকে একটি স্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প তৈরি করা হবে বলে বক্তব্যে জানান তিনি।

নারায়ণগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী সাইরুল ইসলাম বলেন, মেঘনা নদীর তলদেশ দিয়ে সোনারগাঁয়ের বারদী থেকে নুনেরটেকে বিদ্যুৎ লাইন আনা হবে। এজন্য নুনেরটেকে একটি সাবষ্ট্রেশন ও দুটি টাওয়ার নির্মাণ করা হবে। আগামী ১৫দিনের মধ্যে এ সাবস্টেশনের কাজ শুরু হবে। প্রাথমিক ভাবে আজ থেকে বৈদ্যুতিক খুটি স্থাপন ও খুটিতে বৈদ্যুতিক লাইনের কাজ শুরু হলো।

আগামী ২/৩ মাসের মধ্যে আলোকিত হবে নুনেরটেক।এর জন্য কাউকে চাঁদা দিবেন না। সরকার শতভাগ বিদ্যুৎ দিবেন। ২৫কোটি টাকা খরচ হবে এ প্রকল্প বাস্তাবায়নে। ৩৩ কেবি ওয়াট এর ডাবল সার্কিট। ১০/১৫ হাজার গ্রাহকের মাঝে বিদ্যুৎ বিতরণ করা হবে। একটি সাব স্টেশন এর মাধ্যমে।

বারদী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জহিরুল হক বলেন, আমার ইউনিয়নের নুনেরটেক দ্বীপটি ছিল বিদ্যুৎ বিহীন একটি অঞ্চল। চেয়ারম্যান জহিরুল হক বলেন, বারদী ইউনিয়নের জনগণ আজ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী সাইরুল ইসলাম, পল্লী বিদ্যুতের প্রকৌশলী মশিউর রহমান, সোনারগাঁ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ব্যবস্থাপক জোনাব আলী, বারদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জহিরুল হক, বৈদ্যেরবাজার ইউপি চেয়ারম্যান ডাঃ আব্দুর রউফ, নোয়াগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান ইউসুফ দেওয়ান, সোনারগাঁ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ, ইউপি সদস্য দাইয়ান মেম্বার, ওসমান মেম্বার, লোকমান হেকিম, বাচ্চু মেম্বার, আব্দুর কাদের মেম্বার, নুনেরটেক উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি আবুল হাসেম, জাতীয়পার্টির নেতা জাকারিয়া ভুইয়া, উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সালাউদ্দিন আহমেদ প্রমূখ। এসময় নুনেরটেক এলাকায় হাজার হাজার গ্রামবাসী উপস্থিত ছিলেন। আওয়ামীলীগ, জাতীয় পার্টি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

আলোকিত শীতলক্ষ্যা

পরিশ্রমকারীব্যক্তি কখনও ব্যর্থ হয়না এগিয়ে যাও সফল হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.