সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে বিনামূল্যে চক্ষু রোগীদের ছানী অপারেশনসহ চিকিৎসা

উন্নয়নমূলক সংবাদ
সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

স্টাফ রিপোর্টার আলোকিত শীতলক্ষ্যা : বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে নারায়ণগঞ্জ খানপুর ৩’শ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে অস্থায়ী ক্যাম্পে গতকাল বিনামূল্যে চক্ষু রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। প্রথম দফায় চিকিৎসা দেয়া হয়েছে ৪৫৭ জন। এদের মধ্যে ১৫৬ জন পুরুষ ও ৩০২ জন মহিলা। ৪৫৭ জন রোগীর মধ্যে থেকে চোখের ছানি অপারেশন করার জন্য বাছাই করা হয়েছে ৪১ জন রোগী।

এদেরকে গতকাল বাস যোগে সেনাবাহিনীর লোকজন ঢাকায় জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইন্সটিটিউটে নিয়ে ভর্তি করেন। আজ (বৃহস্পতিবার) অপারেশন করে আগামী শনিবার অপারেশন করা রোগীদের খানপুর হাসপাতালে পৌঁছে দিয়ে যাবেন। চক্ষু ক্যাম্পে চিকিৎসা দিয়েছেন জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইন্সটিটিউট এর ৫ জন ডাক্তার ও সেনাবাহিনীর ৩ জন ডাক্তার।

সরজমিনে দেখাগেছে, বুধবার সকালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একটি টিম নারায়ণগঞ্জ খানপুর ৩’শ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে অস্থায়ী ক্যাম্পে চক্ষু রোগীদেরকে চিকিৎসা দিয়েছেন। খুব সুশৃঙ্খল ভাবে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের চিকিৎসা প্রধান করেন।

সকাল ৮টা থেকে দুপর ১টা পর্যন্ত টানা ছয় ঘন্টা চক্ষু রোগীদের চিকিৎসা দেন জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইন্সটিটিউট এর ৫ জন ডাক্তার ও সেনাবাহিনীর ৩ জন ডাক্তার। এসময় তারা রোগীদেরকে চিকিৎসা পাশাপাশি ঔষধও বিনামূল্যে প্রদান করেন রোগীদের।

গতকাল ৪৫৭ জন নারীপুরুষ চক্ষুরোগীকে সেনাবাহীনি চিকিৎসা প্রদান করেন। এর মধ্যে ৪১ জনের চোখে ছানী ধরা পড়ে। জানাযায়, এই ৪১ জন চক্ষু রোগীকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী তাদের বাস যোগে ঢাকায় নিয়ে যাবেন।

বৃহস্পতিবার ওই চক্ষুরোগীদের ছানী অপারেশন করা হবে। পরবর্তিতে আগামী শনিবার ওই রোগীদেরকে নারায়ণগঞ্জ ৩’শ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে প্ৌঁছে দিবেন সেনাবাহিনী। এসমসয় উপস্থিত ছিলেন ৩‘শ শয্যা বিশিষ্ট হাসাপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবু জাহের চৌধুরী, তত্ত্বাবধায়ক এর পিএ সিদ্দিকুর রহমান, অফিস সহকারী মো. সোহেল সহ হাসপাতালেল চিকিৎসকবৃন্দ।

এদিকে প্রথম দফার পর ২য় দফা আগামী ১২ জানুয়ারী বিনামূল্যে চক্ষু রোগীদের ছানী অপারেশনসহ চিকিৎসা প্রদান করা হবে বলে জানাগেছে। আগ্রহী সকলকে আগামী ১২ তারিখে উপস্থিত হয়ে ৩’শ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে সেনাবাহিনীর অস্থায়ী ক্যাম্পে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য অনুরোধ করেছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

সেবা মূলক এই কাজের বাস্তবায়নে রয়েছেন সিএমএইচ ঢাকা এবং ন্যাশনাল আই কেয়ার স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। সহযোগিতা রয়েছেন জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল।

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares
Tagged
আলোকিত শীতলক্ষ্যা
পরিশ্রমকারীব্যক্তি কখনও ব্যর্থ হয়না এগিয়ে যাও সফল হবে।
https://alokitoshitalakha.com

Leave a Reply

Your email address will not be published.