লিপি ওসমান জন্য দোয়া চেয়েছেন শামীম ওসমান

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

আলোকিত শীতলক্ষ্যা রিপোর্ট : করোনা সংকটে নারায়ণগঞ্জে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিক পালন করা মমতাময়ী মা-উপাধি পাওয়া সালমা ওসমান লিপি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

বুধবার ১৬ সেপ্টেম্বর রাতে মুঠোফোনে বিষয়টি নিশ্চিত করেন সালমা ওসমান লিপির স্বামী নারায়ণগঞ্জ- ৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান। ওই সময় তিনি স্ত্রীর জন্য দেশবাসির কাছে নিজ পরিবারের জন্য দোয়া প্রার্থনা করেন।

জানা গেছে, আক্রান্ত অবস্থায় লিপি ওসমান বাড়িতে চিকিৎসারত অবস্থায় মানুষের সেবায় নিয়োজিত রয়েছেন। সড়ক দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত প্যারালাইজ রোগীর বাড়িতে স্বেচ্ছাসেবী পাঠিয়ে আর্থিক সহায়তা দান করেন। আর্থিক সহায়তা পৌছে দেয়া সমাজ কর্মী ফতুল্লা অক্টোফিস এলাকার বাসিন্দা রোমান চৌধুরী সুমন বলেন, “গত শনিবার লিপি ওসমানের হয়ে শহরের নয়াপাড়া এলাকায় সড়ক দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত হুমায়ন কবীর কাবিলের জন্য আর্থিক সহায়তা পৌছে দেই।

প্যারালাইজড রোগী হুমায়ন কবীর কাবিল এর পরিবার আল্লাহর কাছে দোয়া প্রার্থনা করে বলেন, এমন জনপ্রতিনিধির স্ত্রী কয়জন আছে যে নিজে জীবন সংকটে থাকে আরেকজন রোগীর বাড়িতে আর্থিক সহায়তা পাঠিয়ে খোঁজ খবর নিচ্ছেন।

এ বিষয়ে শামীম ওসমান বলেন, অসুস্থ অবস্থায় যেখানে লিপি নিজের জীবন নিয়ে শংকিত সেখানে ও (লিপি) যখন আরেক মৃত্যুপথযাত্রী রোগীর খোঁজ খবর নিচ্ছিল। খুব অসুস্থ। কিন্তু এটা আল্লাহর রহমত। করোনায় আক্রান্ত হয়েও (লিপি) মানুষের জন্য কাজ করছে। আমাদের মানুষের দোয়া দরকার। আল্লাহ মানুষের দোয়া কবুল করেন। আমি আমার পরিবারের জন্য দোয়া ভিক্ষা চাচ্ছি। আপনাদের একজনের দোয়াও যদি আল্লাহ কবুল করেন; হয়তো আমার পরিবার সুস্থ হয়ে উঠবেন’।

প্রসঙ্গত করোনাকালে নারায়ণগঞ্জবাসীর পাশে যে ক’জন ছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান সালমা ওসমান লিপি। দেশের ক্রান্তিলগ্নে অতীতের ধারাবাহিকতায় বর্তমানেও ঐতিহ্যবাহী ওসমান পরিবার প্রশংসনীয় ভূমিকা অব্যাহত রেখেছেন সালমা ওসমান লিপি ও শামীম ওসমানসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা।

নারায়ণগঞ্জে করোনার সংক্রমনের শুরুতে অসহায়দের পাশে সর্বপ্রথম চাঁনমারী বস্তিতে ত্রান পাঠিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়ান লিপি ওসমান। করোনা কালে খাদ্য নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি। আবার কখনো করোনা আক্রান্ত পরিবারের জন্য বাড়িয়ে দিয়েছেন সহযোগীতার হাত।

সংকট কালিন সময়ে করোনায় আক্রান্তদের ব্যবস্থা করেছেন চিকিৎসার। দিয়েছেন হাসপাতালে বেড ও অত্যাধুনিক অক্সিজেন সিলিন্ডার। অর্থ দিয়ে সহযোগীতা করেছেন হাজারও মানুষকে। যখনই খবর পেয়েছেন, কিংবা গণমাধ্যমে-স্যোশাল মিডিয়াতে কোন অসহায় মানুষের সংবাদ প্রকাশ হয়েছে লিপি ওসমান নিজেই ছুটে গিয়েছেন। কিংবা পাঠিয়েছেন তার প্রতিনিধি। করবস্থানে লাশ দাফনে বাধা দিলে নিজে ব্যবস্থা নিয়ে করোনা লাশ দাফন করিয়েছেন।

করোনায় আর্থিক সংকটে যোগালি বনে যাওয়া ফুটবলার আরিফ নিপুনকে আর্থিক সহায়তা দিয়ে মাঠে ফেরান লিপি ওসামন । মূলত করোনার প্রথম থেকেই সাধারণ মানুণের পাশে দাঁড়িয়ে অনুকরণীয় দৃষ্টন্ত স্থাপন করেন ওসমান পারিবারের এই পুত্রবধূ।

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

আলোকিত শীতলক্ষ্যা

পরিশ্রমকারীব্যক্তি কখনও ব্যর্থ হয়না এগিয়ে যাও সফল হবে।