ঘুমন্ত মায়ের কাছ থেকে শিশু নিখোঁজ, অতঃপর!

বন্দর বিশেষ-সংবাদ
সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

রিপোর্টার আলোকিত শীতলক্ষ্যা : ঘুমের ঘর থেকে ২ মাসের শিশু সন্তান নিখোঁজ হওয়ার এক দিন পর একটি ডোবা থেকে ওই শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করেছে মদনগঞ্জ ফাঁড়ি পুলিশ।

মঙ্গলবার ২১এপ্রিল সকাল ৭টায় বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের ১নং মাধবপাশাস্থ হাজী সামছুল হক মিয়ার ডোবা থেকে ওই মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ১ বছর পূর্বে বন্দর উপজেলার কুশিয়ারা এলাকার জলিল মিয়ার ছেলে রুবেল মিয়ার সাথে একই উপজেলার ১নং মাধবপাশা এলাকার মৃত জাবেদ আলী মিয়ার মেয়ে পিংকি বেগমের ইসলামি শরিয়ত মোতাবেক বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের সংসারে ইমাম হোসেন নামে একটি ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। বাচ্চা প্রসবের সময় পিংকি বেগম তার পিত্রালয়ে অবস্থান করে এবং তার স্বামী রুবেল মিয়া তার পিত্রালয় কুশিয়ারা এলাকাতে অবস্থান করে । বাচ্চার ভরন পোষন নিয়ে স্বামী ও স্ত্রী মধ্যে প্রায় সময় কথা কাটাকাটি হয়। এর ধারাবাহিকতায় গত ২০ এপ্রিল রাতে গৃহবধূ পিংকি বেগম ও তার তিন বোন এবং তাদের নানী একটি ঘরে ঘুমিয়ে পরে। ওই সময় রাত ১২টায় গৃহবধূ পিংকি বেগমের ছোট বোন রিংকি প্রকৃৃতির ডাকে সাড়া দিয়ে ঘর থেকে বের হয়। ওই সুযোগে কে বা কারা ঘরে প্রবেশ করে ২ মাসের শিশু সন্তানকে ঘুমান্ত মায়ের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে পাশ^বর্তী হাজী সামছুল হক মিয়ার বাড়ির পাশের ডোবায় ফেলে দেয়।

পরে ২১ এপ্রিল (মঙ্গলবার) সকালে স্থানীয় এলাকাবাসী উল্লেখিত ডোবায় শিশুর লাশ ভাসতে দেখে বন্দর থানা পুলিশকে সংবাদ জানায়। পরে সংবাদ পেয়ে মদনগঞ্জ ফাঁড়ী ইনর্চাজ ইন্সপেক্টর সৈয়দ মিজানুর রহমানসহ সঙ্গীয় ফোর্স দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে ডোবা থেকে শিশুটির মৃতদেহ উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের র্মগে প্রেরণ করে।

এ ব্যাপারে মদনগঞ্জ ফাঁড়ী ইনর্চাজ সৈয়দ মিজানুর রহমান সত্যতা স্বিকার করে জানান, আমরা লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করেছি। আমরা শিশুটিকে হত্যার কারণ জানতে শিশুটির পিতা মাতা এবং তাদের আত্মীয় স্বজনদের সাথে কথা বলেছি। এবং বিষয়টি নিবিড়ভাবে তদন্ত করে দেখছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares
আলোকিত শীতলক্ষ্যা
পরিশ্রমকারীব্যক্তি কখনও ব্যর্থ হয়না এগিয়ে যাও সফল হবে।
https://alokitoshitalakha.com

Leave a Reply

Your email address will not be published.