গোলাম সারোয়ার স্মরণে ও লিপি ওসমানের রোগমুক্তি কামনায় শিব্বির আহম্মেদের উদ্যোগে দোয়া

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

আলোকিত শীতলক্ষ্যা : নারায়ণগঞ্জ শহর পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, শহর যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এক সময়ের তুখোড় নেতা গোলাম সারোয়ারের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী ও (নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের )এমপি শামীম ওসমানের সহ ধর্মিনী নারায়ণগঞ্জ মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান সালমা ওসমান লিপির সুস্বাস্থ্য কামনায় দোয়া ও মিলাদ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার (৩০ অক্টোবর)বাদ আছর নাসিক ১নং ওয়ার্ড হীরাঝিল বাইতুন নুর জামে জামে মসজিদে নারায়ণগঞ্জ মহানগর সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মোঃ শিব্বির আহম্মেদের উদ্যোগে এই দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

দোয়া ও মিলাদে উপস্থিত ছিলেন-বাইতুন নূর জামে মসজিদের সভাপতি মোঃ আব্দুল মতিন, সাধারন সম্পাদক মো: দেলোয়ার হোসেন, হীরাঝিল সমাজ কল্যান সমিতির উপদেষ্ঠা মো: শাহ আলম চেীধূরী (ম্যানেজার), বিশিষ্ঠ সমাজ সেবক মো: সিদ্দিকুর রহমান, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা সেচ্ছাসেবকলীগের নেতা মো:জসিম উদ্দিন, মো: আব্দুল আল-মামুন, মো: কবির শেখ, মো: ওসমান, হীরাঝিল একতা সংঘ এর এডমিন মো: মাহাফিজুর রহমান জনি, মো: জুয়েল চেীধূরী, নাসিক ১নং ওয়ার্ড সেচ্ছাসেবকলীগের নেতা মোঃ লিটন, মোঃ তরিকুল, মোঃ ইমন মোঃ শুভ, মোঃ বিজয় সহ অঙ্গসংগঠনের আরো অনেকে।

উল্লেখ, ২০১৫ সালের ৩০ অক্টোবর মৃত্যুর আগের ২০ দিন ধরেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন গোলাম সারোয়ার।তার প্রচন্ড জ্বর ছিল।প্রথমে তাকে ল্যাব এইডে নেয়া হলে ল্যাব এইড কর্তৃপক্ষ তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখে।সেটাই তাকে বেশী ক্ষতি করেছে। পরে তাকে ল্যাব এইড থেকে শমরিতা হাসপাতালে নিয়ে যায়।সেখানে তিনি ১০ দিন চিকিৎসাধীন ছিল।তবে তারপরেও তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকে সেন্ট্রাল হাসপাতালে ও পরে ইবনে সিনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ছাত্রজীবনে অত্যন্ত মেধাবী ছাত্র ছিলেন গোলাম সারোয়ার।নারায়ণগঞ্জ বার একাডেমী স্কুল থেকে ইংরেজীতে রেকর্ড নাম্বার পেয়ে তিনি এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ঢাকার নটরডেম কলেজ থেকে তিনি এইচএসসি পাশ করেন। পরে তিনি তোলারাম কলেজ থেকে স্নাতক পাশ করেন। তোলারাম কলেজে পড়ার সময় থেকে তিনি ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িয়ে পড়েন।

১৯৮৮ সালে চাষাঢ়া-মিশনপাড়ার রাজনৈতিক বিরোধের সময়ে জেলাজুড়ে আলোচিত হন সারোয়ার। এরপর থেকে রাজনৈতিক অঙ্গনেও সারোয়ার ছিলেন আলোচিত। নব্বই দশকে শহর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সক্রিয় ছিলেন রাজনীতির মাঠে।

১৯৯৬ সালে শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে সারোয়ারের নাম ছড়িয়ে পড়ে জেলা জুড়েই। ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর থেকেই রাজনীতি থেকে এক প্রকার নির্বাসিতই ছিলেন গোলাম সারোয়ার।পরে তিনি ভারতে ছিলেন কয়েক বছর। ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সারোয়ার দেশে ফিরে আসলেও শারিরীক অসুস্থ্যতার কারণে রাজনীতিতে সক্রিয় হননি।

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

আলোকিত শীতলক্ষ্যা

পরিশ্রমকারীব্যক্তি কখনও ব্যর্থ হয়না এগিয়ে যাও সফল হবে।