এশিয়ার বৃহত্তম পাটকল আদমজী জুট মিল বন্ধের দেড়যুগ

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

আলোকিত শীতলক্ষ্যা রিপোর্ট : আজ ৩০ জুন ২০২০ইং। এশিয়ার বৃহত্তম পাটকল আদমজী জুট মিল বন্ধের দেড়যুগ পূর্ণ হলো। ২০০২ ইং সালের ৩০ জুন বন্ধের এই দিনে কান্নার রোল পড়ে গোটা আদমজীতে। বন্ধের দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও সেই কান্না আজও অব্যাহত রয়েছে শ্রমিকদের অন্তরে অন্তরে।

অব্যাহত লোকসানের কারণে প্রতিষ্ঠার ৫২ বছর পর ২০০২ সালের ৩০ জুন বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল এশিয়ার বৃহত্তম এই জুট মিল। বন্ধ হয়ে যাওয়া আদমজী জুট মিলের ২৪৫ দশমিক ১২ একর জায়গায় পরবর্তীতে গড়ে তোলা হয় আদমজী ইপিজেড।

আদমজী ইপিজেডের প্লট সংখ্যা মোট ২২৯টি। প্রতিটি প্লটের আয়তন ২০০ বর্গমিটার। ঢাকার জিরো পয়েন্ট থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার পূর্বে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে আদমজী ইপিজেডের অবস্থান। ২০০৬ সালের ৬ মার্চ এর আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধন করেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া।

আদমজী ইপিজেডের যাত্রা শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত দেশী-বিদেশী বিনিয়োগের মোট ৪৮ টি শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। যার মধ্যে ১১ টি দেশী, ২৭টি বিদেশী ও ১০টি যৌথ মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান। এসব কারখানায় গার্মেন্টস, জিপার, কার্টন, হ্যাঙ্গার, লেভেল, ট্যাগ, জুতা, সোয়েটার, টেক্সটাইল, মুজা, জুয়েলারী, পলি ও ডায়িংসহ ইত্যাদি পণ্য উৎপাদন হচ্ছে। যা শতভাগ রপ্তানিযোগ্য পণ্য।

আদমজী ইপিজেড চালু হওয়ার পর প্রথম অর্থ বছরে বিনিয়োগ হয়েছিল মাত্র ৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর প্রথম অর্থ বছরে রপ্তানী হয়েছিল দশমিক ২৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। শ্রমিক সংখ্যা ছিল মাত্র ১৬২৫ জন। সময়ের পরিক্রমায় বিনিয়োগ যেমন বেড়েছে, তেমনি রপ্তানির পরিমাণও বেড়েছে।

বেপজার তথ্যানুযায়ী, সর্বশেষ (২০১৮-২০১৯) আদমজী ইপিজেডে মোট বিনিয়োগ হয়েছে ৫২১ দশমিক ৯৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। একই সময়ে বিদেশে রপ্তানি হয়েছে ৪ হাজার ৪৮৩ দশমিক ৬৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের পণ্য। শ্রমিক, কর্মকর্তা ও কর্মচারি মিলে এ পর্যন্ত চাকর করছেন মোট ৬২ হাজার ২শ জন। এখানে বিনিয়োগ বাড়ার ফলে বেড়েছে কর্মসংস্থান।

প্রসঙ্গত, ১৯৫০ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে আদমজী পরিবারের তিন ভাই ওয়াহেদ আদমজী, জাকারিয়া আদমজী ও গুল মোহাম্মদ আদমজী মিলে সিদ্ধিরগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে ২৯৪ দশমিক ৮৮ একর জমি নিয়ে আদমজী জুট মিলস নির্মাণ করেন। ৫ কোটি টাকা বিনিয়োগে ১৭০০ হেসিয়ান ও ১০০০ সেকিং লুম নিয়ে এই মিলের উৎপাদন শুরু হয় ১৯৫১ সালের ১২ ডিসেম্বর। তখন আদমজী জুট মিলে প্রতিদিন গড়ে ২৮৮ টন পাটের চট উৎপাদন করা হতো। ওই সময় মিলে ৩৩০০ টি তাঁতকল বসানো হয়। তৎকালীন আদমজী জুট মিলের তৈরি চটের ব্যাগ ও বস্তা দেশের ভোক্তাদের চাহিদা মিটিয়েও বিদেশে রপ্তানি করা হতো। রপ্তানিকৃত পণ্যের মাধ্যমে প্রতি বছর প্রায় ৬০ কোটি টাকা আয় হতো।

সংবাদটি শেয়ার করুন
0Shares

আলোকিত শীতলক্ষ্যা

পরিশ্রমকারীব্যক্তি কখনও ব্যর্থ হয়না এগিয়ে যাও সফল হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.